শনিবার | ৮ মে, ২০২১ | ২৫ বৈশাখ, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > দেশ ও জনপদ > আনুলিয়ায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

আনুলিয়ায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

আনুলিয়ায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

জিএম আল ফারুক, আশাশুনি (সাতক্ষীরা): আশাশুনি উপজেলার আনুলিয়া ইউনিয়নের মির্জাপুর গাজীপাড়ায় শুক্রবার সন্ধ্যায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা হয়েছে। ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জি এম মতিয়ার রহমান। প্রধান অতিথি ছিলেন, ৪নং ওয়ার্ড আ’লীগ সেক্রেটারী, উপজেলা তাতীলীগের আহবায়ক, সাবেক ছাত্রনেতা আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশাী শাহাবুদ্দিন সানা (মেম্বার)। সভায় ইউনিয়ন আ’লীগ সেক্রেটারী ফারুকুজ্জামান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুর রহমান গাজী, আমান গাজী, পরিমল অধিকারী, মোক্তার হোসেন, গোলাম কুদ্দুছ,রফিকুল ইসলাম, স ম রুহুল আমিন, আবু বক্তর ছিদ্দিক, আঃ হাকিম গাজী, আঃ ছাত্তার সরদার, আঃ সামাদ সানা, আঃ ছাত্তার কারিকর, মোসলেম উদ্দিন, ছবেদ আলি খাঁ, মুনছুর আলি, আঃ ছবুর গাজী, আনছারুজ্জামান, আঃ মাজেদ, আনিছুর, মোকছেদ আলি, মেম্বার এনামুল হোসেন, সাবেক মেম্বার অহেদ আলি, ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি/সেক্রেটারী শহিদুল ইসলাম, মতিয়ার রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সবশেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত শিল্পীরা মনোজ্ঞ সংগীত পরিবেশন করেন।

 

আশাশুনিতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন

বড়দল আফতাব উদ্দিন কলেজিয়ট স্কুল ঃ ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় মোমবাতি প্রজ্জ্বলন, ২৬ মার্চ জাতীয় পতাকা উত্তোলন, রচনা, ক্রিকেট খেলা ও আলোচনা সভা করা হয়। অধ্যক্ষ ড. শিহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সহকারী প্রধান শিক্ষক তরুন কান্তি সানার সঞ্চালনায় সভায় শিক্ষক মোহাম্মদ আলি, এনামুল হক, বলাই কুষ্ণ মন্ডল, মতিউর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বড়দল ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ঃ জাতীয় পতাকা উত্তোলন, র‌্যালী, পুস্পস্তবক অর্পন ও আলোচনা সভা করা হয়। উপজেলা ডেপটি কমান্ডার লিয়াকত আলির সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, ইউপি চেয়ারম্যান আঃ আলিম মোল্যা। অন্যদের মধ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা আকের আলি, আঃ সাত্তার গাজী, বজলুর রহমান, সিরাজ সানা, ইউসুফ খা, কার্ত্তিক মন্ডল, আজিজ মোল্যা, মমতাজ মাষ্টার, সন্তান কমান্ডের সভাপতি মহসিন আলি লিটন, নুরুজ্জামান মালী, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আঃ আজীজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। গেয়ালডাঙ্গা ফকির বাড়ি হাই স্কুল ঃ জাতীয় পতাকা উত্তোলন, নীরবতা পালন, দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা করা হয়। প্রধান শিক্ষক সুশান্ত মন্ডলের সভাপতিত্বে সভায় সহকারী প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম, শিক্ষক নিমাই চাঁদ সরকার, বিজয় বৈরাগী, মনোরঞ্জন সরকার, বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ ছাত্তার, বজলুর রহমান, আকের আলি গাজী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। চাম্পাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঃ জাতীয় পতাকা উত্তোলন, আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান করা হয়। সভাপতি আবুল কালামের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান শিক্ষক আঃ রহিম, সহকারী শিক্ষক আজিজুর রহমান, হিরক চন্দ্র মন্ডল, শিলা পারভিন, পিটিএ সভাপতি দেবদাস ব্যানার্জী উপস্থিত ছিলেন। মিত্র তেঁতুলিয়া পিএসএস হাই স্কুল ঃ জাতীয় পতাকা উত্তোলন, আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠান করা হয়। মিজানুর রহমান মন্টুর সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন, প্রধান শিক্ষক এস এম আবু ছাদেক, সিনিঃ শিক্ষক হিরন্ময় কুমার মন্ডল, পিটিএ সভাপতি শংকর প্রসাদ ব্যানার্জী, এসএমসি সদস্য মাহফুজুর রহমান, সিঃ শিক্ষক নাজমুল হক। দোয়া পরিচালনা করেন, ধর্মীয় শিক্ষক নূুরুল ইসলাম।

 

শোভনালীর বালিয়াপুর গ্রামে তহশীলদার কর্তৃক নির্ধারণ করে দেওয়া সীমানা ব্যবহারে বাধা সৃষ্টির অভিযোগ
আশাশুনির শোভনালী ইউনিয়নের বালিয়াপুর গ্রামে তহশীলদার কর্তৃক নির্ধারণ করে দেওয়া সীমানা ব্যবহারে বাধা সৃষ্টি করে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বালিয়াপুর গ্রামের মৃত নাগর আলি গাজীর পুত্র হেদায়েত সরকারি খাস জমির পথ ব্যবহার করে বাড়িতে যাতয়াত করে থাকেন। তার যাতয়াতের অন্য কোন উপায় নেই। খাস জমিতে জবর দখল নিয়ে ব্যক্তিগত সম্পত্তিতে পরিণত করতে ষড়যন্ত্র করে আসছিলেন প্রতিবেশী দুলাল সরদার। এনিয়ে দীর্ঘ দিনের দ্ব›দ্ব নিরসন করতে ২৩ মার্চ এসিল্যান্ড অফিসের সার্ভেয়ার ও ইউনিয়ন সহকারী ভ‚মি কর্মকর্তা স্থানীয় দু’জন আমিনের উপস্থিতিতে সরেজমিন মাপ জরিপ করেন। মাপজরিপ শেষে লাল পতাকা টানিয়ে খাস জমি পৃথক করে দেন। এই পথেই হেদায়েত দিং যাতয়াত করে আসছেন দীর্ঘদিন। তহশিলদারকে তারা পথ ব্যবহার করে থাকেন, জানালে, সরকারি জমিতে সবাই চলাচাল করতে পারবেন বলে জানান। ২৬ মার্চ হেদায়েত দিং পথটি পরিস্কার ও যাতয়াতের জন্য উপযোগি করতে গেলে শহিদুল, বিষ্ণ, স্বপন, সঞ্জয়সহ ৮/১০জন বাধা দেয়। পরে সেখানে নয়ন উপস্থিত হলে ব্যাপক কথা কাটাকাটি ঠেলাঠেলি হয়। এদিন সন্ধ্যায় ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে দুলালের রান্নাঘরের পিছনে আগুন ধরিয়ে দিলে রাজু ও আবু বক্করের শিশু পুত্র দেখতে পেয়ে হাত দিয়ে ধাক্কা দিয়ে নিভিয়ে ফেলে। আগুনে কয়েকটি গোলপাতার অগ্রভাগের সামান্য অংশ পুড়ে যায়। এটিকে রং মাখিয়ে ৯৯৯ নং ফোন করা হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করেন। ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক ম মোনায়েম হোসেন বলেন, পথটা বিষ্ণরা নিজেদের বলে দাবী করে। তারা আবেদন করলে সরকারি ভাবে মাপজরিপ করে লাল পতাকা টানিয়ে সেটি খাস জমি হিসাবে চিহ্নিত করে দেয় সার্ভেয়ার ও তহশীলদার। ঐ পথেই হেদায়েতরা যাতয়াত করে থাকে। তারা পথের ঘেরা কেটে চলাচলের জন্য ঠিক করতে গেলে দ্ব›দ্ব হয়। এনিয়ে রান্না ঘরে আগুনের নাটক করলে পুলিশ তদন্ত করে। অভিযোগটি সাজানো প্রমানিত হয়েছে।

কমেন্টস

Leave a comment

x