শনিবার | ৮ মে, ২০২১ | ২৫ বৈশাখ, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > দেশ ও জনপদ > আশাশুনির হাড়িভাঙ্গা স্কুলের বিরুদ্ধে থামছেনা ষড়যন্ত্র

আশাশুনির হাড়িভাঙ্গা স্কুলের বিরুদ্ধে থামছেনা ষড়যন্ত্র

আশাশুনির হাড়িভাঙ্গা স্কুলের বিরুদ্ধে থামছেনা ষড়যন্ত্র

জিএম আল ফারুক, আশাশুনি (সাতক্ষীরা): আশাশুনির হাড়িভাঙ্গা এইচ এন এস কে টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও প্রধান শিক্ষক সুকুমার মন্ডলের বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্র অব্যাহত থাকায় বিদ্যালয়টি বিপত্তিকর পরিস্থির মুখোমুখি হচ্ছে। শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটি ও অভিভাকরা ষড়যন্ত্রের প্রতিকারে চেষ্টা চালিয়েও এখনো স্বত্তিতে ফিরতে না পারায় সংশ্লিষ্টদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষক, অভিভাবক ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির একাধিক সদস্য জানান, বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক রেনুকা বালা সরকার প্রধান শিক্ষক না হতে পেরে বিদ্যালয় বিধি মোতাবেক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে নানা অভিযোগ ও ভিত্তিহীন প্রচারনা বিভিন্ন গনমাধ্যমে ছড়িয়ে বেড়াচ্ছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সহকারী শিক্ষক রেনুকা বালা হাড়িভাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রথমে সহকারী শিক্ষক ও পরে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসাবে পদোন্নতি পেয়েছেন। প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হলে গাভা এ কে এম আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বরত অবস্থায় প্রধান শিক্ষক পদে আবেদেন করেন সুকুমার মন্ডল। রেনুকা বালা সরকারও আবেদন করেছিলেন কিন্তু তিনি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেননি। মেধা তালিকায় উত্তীর্ন হয়ে সুকুমার মন্ডল প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পান। তিনি নিয়োগ পাওয়ার পর হতে সুনামের সাথে বিদ্যলয় পরিচালনা করে আসছেন। কিন্তু রেনুকা বালা প্রধান শিক্ষক হতে না পারায় বিদ্যালয়ের স্বার্থ বিরোধী ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অহেতুক ও কাল্পনিক অভিযোগ এনে যেমনি বিতর্কিক ও সমস্যা সৃষ্টি করতে থাকেন তেমনি কর্তব্য কর্মে নানা অবহেলা ও বিধি বহির্ভূত কাজ করতে থাকেন। বাধ্য হয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে প্রায় ১ বছর ৪ মাস সাসপেন্ড করেন। সাসপেন্ড মুক্ত হলেও তিনি স্বভাব পরিবর্তন করেননি। প্রধান শিক্ষক বলেন, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে তিনি (রেনুকা বালা) অভিযোগ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। বিষয়টি নিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দারস্ত হলে “মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডি ও ম্যানেজিং কমিটি প্রবিধানমালা ২০০৯ সংশোধন সংক্রান্ত সভার কার্যবিবরনী এর সিদ্ধান্ত নং ১০ এ প্রবিধান- ৫(৩) এ প্রতিস্থাপন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন স্বাক্ষরিত শিম/১১/১-৪(কমিটি)২০১০/২০৬ নং স্মারকে ১৮ মার্চ ২০১২ “ম্যানেজিং কমিটি গঠন সংক্রান্ত প্রবিধান ৭ এর উপ বিধান (২) এর অস্পষ্টতা ও প্রয়োগে অসুবিধা দুরীকরণ” বিষয়ক পত্রে সারমর্ম মোতাবেক কমিটির সভাপতি বৈধ থাকায় বোর্ড কর্তৃপক্ষ ও মন্ত্রালয়ের বৈধতা পেয়ে পরবর্তী কার্যক্রম শুরু করা হয়। এবং ২৬ জানুয়ারী সহকারী গ্রন্থাগারিক ও নৈশ প্রহরী পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিধি মোতাবেক কার্যক্রম শেষে ১৪ই মার্চ নিয়োগ পরীক্ষা দিন ধার্য করা হয়। এবারও শিক্ষক রেনুকা বালা কোনো কারন ছাড়াই বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় পূর্বের শত্রæতার জের ধরে ভিত্তিহীন অভিযোগ করছেন বলে সংশ্লিষ্টরা দাবী করেন। এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সাথে কথা হলে তিনি বলেন, নিয়ম অনুযায়ী নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। কে কি বললো এটা আমাদের আসে যায় না। এ ব্যাপারে সহকারী প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আদালতে মামলা চলমান। বিচার চলাকালীন সময়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা যায়না বলে তিনি দাবি করেন।

কমেন্টস

Leave a comment

x