মঙ্গলবার | ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ | ৬ আশ্বিন, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > সাতক্ষীরা > কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগরের সেই ভূয়া ডাক্তারের পক্ষে সাফাই গেয়ে পিতার সংবাদ সম্মেলন

কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগরের সেই ভূয়া ডাক্তারের পক্ষে সাফাই গেয়ে পিতার সংবাদ সম্মেলন

কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগরের সেই ভূয়া ডাক্তারের পক্ষে সাফাই গেয়ে পিতার সংবাদ সম্মেলন

এসএম গোলাম ফারুক: সম্প্রতি সাতক্ষীরা থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকাসহ দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগরে ভূয়া ডাক্তার ও বিষ্ণুপুরে ভূয়া কবিরাজকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।
প্রতিবেদন প্রকাশের পর এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হলে বিষ্ণুপুরের সেই কবিরাজ এলাকা ছেড়ে পালান। অপরদিকে কৃষ্ণনগরের ভূয়া ডাক্তার রেজাউলের গাত্রদাহ শুরু হয়।
সংবাদকর্মীরা ভূয়া এবং টাকা দাবি করেছে এমন অপবাদ দিয়ে সাতক্ষীরায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ভূয়া ডাক্তার রেজাউলের পিতা সামছুর রহমান তরফদার।
মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে লিখিত বক্তব্যে তিনি দাবি করেন, ‘আমার পুত্র মোঃ রেজাউল করীম ২০০৯ সালে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড, ঢাকার অধীনে ডিপ্লেঅমা ইন হোমিওপ্যাথিক মেডিসিন এন্ড সার্জারী পাশ করে ২ বছর ইর্ন্টানি করে চেম্বার দেওয়ার অনুমতি পেয়ে কালিগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চল কৃষ্ণনগরে কোহিনুর হোমিও হল খুলে ১০ বছর ধরে গরীব ও অসহায় মানুষের স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছে।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমার পুত্রের হোমিও চিকিৎসা করার সকল যোগ্যতা এবং সনদপত্র রয়েছে। সুতরাং সে ভূয়া নয়। যারা ভূয়া বানানোর চেষ্টা করছেন প্রয়োজনে তাদের বিরুদ্ধে আদালতের স্বরনাপন্ন হবো আমি।’
এদিকে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক জানা গেছে,‘বিএমডিসি অ্যাক্ট-২০১০-এর সেকশন ২৯ অনুযায়ী বিএমডিসির নিবন্ধন ও অনুমোদন ছাড়া কোনো চিকিৎসক তার নামের আগে ডাক্তার লিখতে পারবেন না। এমনকি কোনো পদবী, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও প্রশিক্ষণের নামও ব্যবহার করতে পারবেন না।
জনস্বার্থে করা একটি রিটের শুনানি করে এ বছরের ২০ জানুয়ারি বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ ওই আদেশ দেন।’
ওই রিটের আইনজীবী মো. জে আর খান রবিন বলেন, ‘অনুমোদনহীন প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সধারীরাই কেবল নামের সঙ্গে ডাক্তার লিখতে পারবেন না, বিষয়টা তা না। অনুমোদনহীনরা তো পারবেনই না, স্বীকৃত কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে পাশ করে বিএমডিসির নিবন্ধন ও অনুমোদন না পেলে কেউ ডাক্তার লিখতে পারবেন না।’
অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় সরকার অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান থেকে প্যারামেডিকেল, ফিজিওথেরাপি কিংবা হোমিওপ্যাথি পাস করে নামের সঙ্গে ডাক্তার লিখে সাইনবোর্ড ও প্যাড ব্যবহার করছেন। তারা কী এটা পারবেন? এমন প্রশ্নে জবাবে আইনজীবী রবিন বলেন, ‘বিএমডিসির অনুমোদন ছাড়া অর্থাৎ এমবিবিএস ও বিডিএস (ব্যাচেলর অব ডেন্টাল সার্জারি) পাস ছাড়া কেউ ডাক্তার পদবী ব্যবহার করতে পারবেন না।’
তিনি আরও বলেন, ‘অনেক ডাক্তারই পোস্ট-গ্র্যাজুয়েশন না করেও ‘বিশেষজ্ঞ’ শব্দ ব্যবহার করেন। যা জনসাধারণের সঙ্গে প্রতারণার শামিল, বিএমডিসির আইনের পরিপন্থি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। অনেক ডাক্তার ওই নির্দেশ অমান্য করে তাদের ভিজিটিং কার্ড, সাইনবোর্ড এমনকি প্রেসক্রিপশন প্যাডেও এসব প্রশিক্ষণের নাম উল্লেখ করায় সাধারণ মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছেন। অনেক ক্ষেত্রে অপচিকিৎসারও শিকার হন।’
সারা দেশে অনুমোদন ও মানহীন বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধের আবেদনের বিষয়ে আইনজীবী রবিন বলে, ‘মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে দেশের সব অনুমোদন ও মানহীন বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধের ব্যর্থতা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে হাইকোর্ট রুল জারি করেছেন।’
জে আর খান রবিন এ বিষয়ে আইনের ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, ‘দ্য মেডিকেল প্রাকটিশনার অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিকস অ্যান্ড ল্যাবরেটরিস (রেগুলেশন) অধ্যাদেশ, ১৯৮২-এর ৮ ধারা অনুযায়ী লাইসেন্স ছাড়া কোনো প্রাইভেট ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা করা যাবে না। ৯ ধারা অনুযায়ী, শর্তাবলী পূরণ না হলে কর্তৃপক্ষ কোনো প্রাইভেট ক্লিনিক প্রতিষ্ঠার অনুমতি প্রদান করবেন না।
এ বিধান থাকা সত্ত্বেও বর্তমানে ব্যাঙের ছাতা মতো বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে। যার অধিকাংশই অনুমোদনহীন ও মানহীন।’
কথিত ডাক্তার রেজাউল এবং তার স্ত্রী ‘ডাক্তার’না হয়েও কিভাবে নামের আগে ডাক্তার ব্যবহার করে সাইনবোর্ড এবং ন্যামপ্লেটে ব্যবহার করছিলো এবং মানুষকে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিয়ে নিচ্ছিলেন সে বিষয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়।

 

Share this:

কমেন্টস

Leave a comment

x