সোমবার | ৬ জুলাই, ২০২০ | ২২ আষাঢ়, ১৪২৭
সময় নিউজ ২৪ > দেশ ও জনপদ > কালিগঞ্জে ইউএনও ও ব্যাংক ম্যানেজারের ভূয়া মোবাইল নাম্বার দিয়ে প্রতারণা

কালিগঞ্জে ইউএনও ও ব্যাংক ম্যানেজারের ভূয়া মোবাইল নাম্বার দিয়ে প্রতারণা

কালিগঞ্জে ইউএনও ও ব্যাংক ম্যানেজারের ভূয়া মোবাইল নাম্বার দিয়ে প্রতারণা

নিয়াজ কওছার তুহিন: সাতক্ষীরার কালিগঞ্জে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজারের ভূয়া মোবাইল নম্বর দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় ধলবাড়িয়া ইউনিয়নের গণেশপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল আজিজ মিস্ত্রীর ছেলে ভুক্তভোগী রেজাউল মিস্ত্রী (৩৭) থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, রবিবার (২৮ জুন) সকাল ৯ টার দিকে ধলবাড়িয়া ইউপি’র ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য খায়রুল ইসলাম (৫৫) তার বাড়ির পাশে যেয়ে ডাক দেয়। কাছে গেলে তিনি ইউএনও এবং সোনালী ব্যাংক কালিগঞ্জ শাখার ম্যানেজারের মোবাইল নাম্বার লেখা একটি কাগজ ধরিয়ে দিয়ে লোন পাওয়ার জন্য মোবাইলে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজারের ০১৮১৭-৩৯৮৭৬৩ সাথে কথা বললে রেজাউল ইসলামকে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা প্রদানসহ লোন দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সকাল সাড়ে ১০ টার মধ্যে বিকাশে ৩২ হাজার ২৫০ টাকা প্রেরণ করতে বলেন। বিষয়টি আরও নিশ্চিত হওয়ার জন্য কথিত ইউএনও’র ০১৬৪৬৫১৪২২৭ নম্বরে কথা বললে অপর প্রান্ত থেকে বলেন, সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজারের সাথে তোমার লোনের ব্যাপারে আমার কথা হয়েছে। তুমি দ্রুত বিকাশ করে ম্যানেজারের কাছে টাকা পাঠিয়ে দাও। এরপর বিষয়টি রেজাউল মিস্ত্রী তার দাদা মুক্তিযোদ্ধা আনছার আলীকে (৮০) জানালে তিনি সরাসরি সোনালী ব্যাংক কালিগঞ্জ শাখায় যেয়ে ম্যানেজারের সাথে কথা বলে জানতে পারেন ম্যানেজার ও ইউএনও’র নাম্বার সঠিক নয়। প্রতারক চক্র কৌশলে টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্য ফাঁদ পেতেছিল। প্রতারণার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়ে দোষীদের চিহিৃত ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান রেজাউল মিস্ত্রী।
এব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য খায়রুল ইসলাম বলেন, আমি সকালে প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের যাওয়ার জন্য বের হলে ইউএনও স্যারের পরিচয়ে ফোন দিয়ে আমাকে নাম্বার দু’টি লিখে রেজাউল মিস্ত্রী ও মুক্তিযোদ্ধা আনছার আলীর কাছে দ্রুত পৌছে দিতে বলে। আমি রাস্তায় দাড়িয়ে নাম্বার দু’টি কাগজে লিখে তাদের কাছে দিয়েছি। এটা প্রতারক চক্রের কুটকৌশল ছিল তা ধারণা করতে পারিনি। তিনি অপরাধীদের শনাক্ত করে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক রাসেল বলেন, প্রতারক চক্র মানুষকে ঠকানোর অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানতে পেরে আমি আগেই আমার ফেসবুক আইডি থেকে সতর্ক করে পোস্ট দিয়েছিলাম। তারা এখনও সক্রিয়। আমার নাম ব্যবহার করে অন্য মোবাইল নাম্বার দিয়ে প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টার বিষয়টি জানতে পেরেছি। এব্যাপারে আরও খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কমেন্টস

Leave a comment