শুক্রবার | ২৫ জুন, ২০২১ | ১১ আষাঢ়, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > কুমিল্লা > কোম্পানীগঞ্জ বাজারে উচ্ছেদ করা দোকান ফের দখল

কোম্পানীগঞ্জ বাজারে উচ্ছেদ করা দোকান ফের দখল

কোম্পানীগঞ্জ বাজারে উচ্ছেদ করা দোকান ফের দখল
মনির খাঁন, কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধি: কুমিল্লার মুরাদনগরে সরকারি যায়গায় অবৈধভাবে নির্মিত দোকান উচ্ছেদের পর ফের দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দখলদার অনেকেই উচ্ছেদ করা অংশে টিনের চাল ও কার্পাল দিয়ে ছাউনি বানিয়ে দোকান পরিচালনা করে আসছেন। যার ফলে উচ্ছেদ হওয়া দোকানের জায়গাগুলো ফের দখলের শঙ্কা রয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার কোম্পানীগঞ্জ বাজারে চলতি বছরের ৯মার্চ যানজট নিরসন ও মহাসড়ক ফুটপাতমুক্ত করতে কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে অবৈধভাবে গড়ে উঠা দোকান উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে সড়ক ও জনপদ বিভাগ (সওজ)।
এসময় সড়কের পাশে গড়ে উঠা প্রায় ৩০০টি দোকান উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদের পর যানজট কিছুটা নিরসন হলেও বর্তমানে এ জায়গা আবার দখল করার ফলে যানজট আগের রূপে ফিরে আসবে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কোম্পানীগঞ্জ বাজারে উচ্ছেদ করা দোকানগুলোর বাশ, কাঠ, টিনসহ বিভিন্ন অংশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পরে আছে। কোন কোন জায়গায় এসব উচ্ছেদকৃত স্থাপনার উপর কার্পাল দিয়ে ছাউনি বানিয়ে আবার কেউ টিনের চালা তৈরি করে তার নিচে ব্যবসা পরিচালনা করছেন।
ইতিমধ্যে এ বাজারেরর সততা প্লাস্টিক পট্টিতে দুটি দোকান নির্মান কাজ সম্পূর্ন করে আরো দুটি দোকান নির্মানের কাজ অব্যাহত রেখেছেন উপজেলার কুলুবাড়ি গ্রামের তাজুল ইসলাম, গুঞ্জুর গ্রামের খালেক মিয়া, ধামঘর গ্রামের তাজুল ইসলাম ও ব্যবসায়ি রুহুল আমিন। যার ফলে বাকি দখলদাররাও দোকান নির্মান করতে সক্রিয় হচ্ছে বলে জানা গেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, যারা এ দোকানগুলো নির্মান করছেন তারা স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের ছত্রছায়ায় এ দোকান নির্মানের কাজগুলো করছেন। দখলদারদের কেউ কেউ মৌখিকভাবে এসব প্রবাবশালীদের কাছ থেকে এ দোকানের জায়গাগুলো কিনেছেন। দখলদার ধামঘর গ্রামের তাজুল ইসলামের সাথে দোকান দখলের ব্যাপারে কথা হলে তিনি বলেন, নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বলেছেন আমরা আমাদের দোকনগুলো একটু একটু করে নির্মান কাজ শেষ করে ফেলতে তাই আমরা দোকানগুলো নির্মান করছি। এ বিষয়ে চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বলেন, এটা সড়ক ও জনপথের জায়গা আমি অনুমতি দিব কিভাবে। আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানি না। যারা এভাবে সরকারি জায়গা দখল করছেন এটা অন্যায় করছেন। দখলদারদের ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে প্রশাসনকে অবগত করব। সড়ক ও জনপথ বিভাগের কুমিল্লা জেলা উপসহকারি প্রকৌশলী মো: হুমায়ুন কবির বলেন, যারা এ জায়াগাগুলো ফের দখল করছেন তাদেরকে প্রথমে মৌখিকভাবে বাধা দিব না মানলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা এ দোকানগুলো আবার উচ্ছেদ করার ব্যবস্থা করব। মুরাদনগর উপজেলা  নিবার্হী অফিসার অভিষেক দাশ বলেন, আমি লোকজন পাঠাব ওই জায়গা পরিদর্শন করতে। যারা এ যায়গাগুলো দখল করছেন তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
Share this:

কমেন্টস

Leave a comment

x