বৃহস্পতিবার | ১৩ মে, ২০২১ | ৩০ বৈশাখ, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > গাইবান্ধা > গাইবান্ধায় গৃহবধূর শরীরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে হত্যার চেষ্টা, থানায় মামলা

গাইবান্ধায় গৃহবধূর শরীরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে হত্যার চেষ্টা, থানায় মামলা

গাইবান্ধায় গৃহবধূর শরীরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে হত্যার চেষ্টা, থানায় মামলা
মাসুম বিল্লাহ, গাইবান্ধা: গাইবান্ধা সদর উপজেলায় যৌতুক না পেয়ে শারমিন বেগম (২০) নামে এক গৃহবধূকে মারপিটের পর শরীরে গ্যাস লাইটের আগুন ধরিয়ে দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী ও শাশুড়ীর বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় মৃত্যু নিশ্চিত করতে আগুন দিয়ে ঘরে তালাবন্দি করে রাখা হয়েছিল ওই গৃহবধূকে। আগুনের ঘটনায় গৃহবধূর শরীরের পুড়ে গেছে অনন্ত ৫০ শতাংশ। ঝলছে গেছে দেহের বিভিন্ন স্থান।
মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) দুপুরে সদর উপজেলার মালিবাড়ি ইউনিয়নের কাবিলের বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে অগ্নিদগ্ধ গৃহবধূ শারমিন বেগমকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
এ ঘটনায় গৃহবধূর বাবা শফিউল ইসলাম বাদি হয়ে গৃহবধূর স্বামী কোরবান আলী, শাশুড়ি কুলসুম বেগম ও শ্বশুর ইসমাইল হোসেনের নাম উল্লেখ করে বুধবার দুপুরে গাইবান্ধা সদর থানায় একটি হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নম্বর-৬৭। শারমিন বেগম গাইবান্ধা সদর উপজেলার মালিবাড়ি ইউনিয়নের কাবিলের বাজার এলাকার শফিউল ইসলামের মেয়ে।
স্থানীয়রা জানায়, যৌতুক না পেয়ে মঙ্গলবার দুপুরের দিকে স্বামী কোরবান আলী ও তার মা কুলসুম বেগম গৃহবধূ শারমিনকে বেধরক মারপিট করেন। মারপিটের এক পর্যায়ে স্বামী কোরবান আলী ক্ষিপ্ত হয়ে গ্যাস লাইটার দিয়ে শারমিনের পরনে থাকা ম্যাক্সিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে তাকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় ঘরে তালাবন্দি করে রাখা হয়। স্বামীর দেয়া আগুনে শারমিন বেগমের শরীরের পঞ্চাশ শতাংশের বেশি পুড়ে গেছে। এতে করে ঝলসে গেছে তার শরীরের বিভিন্ন স্থান।
প্রায় দুই বছর আগে শারমিন বেগমের বিয়ে হয় একই এলাকার ইসমাইল হোসেনের ছেলে কোরবান আলীর সাথে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকসহ নানা কারণে মেয়েটিকে নির্যাতন করে আসছিল স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর।
গৃহবধূর স্বজনদের অভিযোগ, যৌতুকের জন্য তাদের মেয়েকে মারপিট করার পর শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এমনকি হত্যা করার জন্য তাকে ঘরে তালা দিয়ে রাখা হয়। পরে গৃহবধূর স্বজনরা এসে স্থানীয়দের সহায়তায় গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সন্ধ্যার দিকে গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় গাইবান্ধা জেলা হাসপাতাল কর্তপক্ষ।
গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজার রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সময়নিউজকে বলেন, “গৃহবধুকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টার মামলা করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। এসময় তিনি খুব দ্রুত আসামি গ্রেপ্তার হবে বলেও জানান”।

কমেন্টস

Leave a comment

x