বুধবার | ১২ মে, ২০২১ | ২৯ বৈশাখ, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > দেশ ও জনপদ > জামালগঞ্জের পল্লীতে আগুনে ৮ ঘর পুড়ে ছাই: ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি

জামালগঞ্জের পল্লীতে আগুনে ৮ ঘর পুড়ে ছাই: ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি

জামালগঞ্জের পল্লীতে আগুনে ৮ ঘর পুড়ে ছাই: ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি

মুহিবুর রেজা টুনু, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জের পল্লীতে বিদ্যুতের সটসার্কিট থেকে আগুন লেগে ৮ ঘর পুড়ে ছাই হয়েছে। এতে প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্তরা।

সোমবার দিবাগত গভীর রাতে জামালগঞ্জ উপজেলার বেহলী ইউনিয়নের রাধানগর গ্রামে পশ্চিম পাড়ায় আগুনের সূত্রপাত ঘটে। আগুনের লেলিহান শিখা আর চিৎকার শোনে গ্রামবাসী এসে আগুন নিভানোর চেষ্টা করেন। ঘটনার খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব রাতেই ঘটনাস্থলে ছুটে যান। কয়েক ঘন্টা পর গ্রামবাসীকে নিয়ে চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রেনে আনেন।

আগুনে পুড়ে যাওয়া ঘরের ক্ষতিগ্রস্ত বানেছা বেগম বলেন, আমরা রাইত খাইয়া ঘরে ঘুমাইছি, আধা রাইত গরমের আর আগুনের ধুমার গন্ধে ঘুম ভাংছে। ঘুম থাইক্যা উঠি দেখি আগুন লাগছে। পরে আমরা চিৎকার দিলে গ্রামবাসী আইছে , এর পর আমার ঘর আগুনে পুরছে। গ্রামের মানুষ আগুন নিভানোর লাইগা চেষ্টা করছে। শুধু পড়নের কাপড় লইয়া ঘর থাইকা বাহির হইছি। আয়না মিয়া বলেন, ঘরে খাইয়া ঘুমাইয়া আছিলাম রাত অনুমান সাড়ে ১১ টা কি ১২ অইব। শরীরে গরমের তাপে ঘুম ভাংছে। ঘুম থাইকা উঠি দেখি ঘরে আগুন লাগার গরম। চিৎকার দিয়া বাচ্চা কাচ্চা লইয়া দৌড়াইয়া বাহির হইছি। গ্রামবাসী আইয়া আগুন নিভানোর চেষ্টা করছে। রাইতে ইউএনও সাব আইছে গ্রামের লোকজন মিল্লা আগুন নিভাইছে। তবে সড়ক যোগাযোগ না থাকায় ফায়ার সার্ভিস সেখানে যেতে পারেনি।
সোমবার বার দিবাগত গভীর রাতে সম্ভবত ওই গ্রামের আতাবুর বা কালন মিয়ার ঘর থেকে বিদ্যুতের সটসার্কিট থেকে আগুল লাগার সূত্রপাত হতে পারে এমটি জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্য রয়েছেন, রিনা বেগম, বানেছা বেগম, আয়না মিয়া, আইন উদ্দিন, আতাবুর মিয়া, রোকশানা বেগম, কালন মিয়া, রুহুল আমীন।
এব্যাপারে জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব জানান, রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গ্রামবাসীকে নিয়ে চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্দ্রনে আনেন। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতি পরিবারে নগদ ৬ হাজার টাকা, ২ ভান্ডেল টেউটিন , ২ করে কম্বল ও চাল প্রদান করা হয়েছে।

 

সুনামগঞ্জে বিনা ধানের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা)’র উদ্যোগে ফসলের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণে তিন ফসলভিত্তিক ফসল বিন্যাস উদ্ভাবন ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে রবি মৌসুমে বিনা খেসারী-১ এর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের কোনাগাঁও গ্রামে এই মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়।
মাঠ দিবসের সভায় সুনামগঞ্জের বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) উপকেন্দ্র ভারপ্রাপ্ত বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আব্দুর রাকিবের সভাপতিত্বে এতে ভার্চুয়ালী প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা)’র মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন টিপু, বিনা’র উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এ.এফ.এম ফিরোজ হাসান, উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শামীমা বেগম, উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. মহসীন আলী সরকার, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মাহবুব করীম।

এছাড়াও সভায় বক্তব্য রাখেন কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তা বিকাশ কুমার তালুকদার, স্থানীয় কৃষক কামাল হোসেন, মো. সাজিদ মিয়া, মো. সুরুজ আলী। সভা সঞ্চালনা করেন বিনা উপকেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান। মাঠ দিবসের অনুষ্ঠানের আগে বিনা’র খেসারী-১ এর মাঠ প্রদর্শনী ফসল পরিদর্শন করেন কর্মকর্তাগণ।

 

 

কমেন্টস

Leave a comment

x