শনিবার | ৮ মে, ২০২১ | ২৫ বৈশাখ, ১৪২৮
সময় নিউজ ২৪ > বগুড়া > ধুনটে দুই সন্তানের জননীকে মারপিট ও গোপনে তালাকের অভিযোগ

ধুনটে দুই সন্তানের জননীকে মারপিট ও গোপনে তালাকের অভিযোগ

ধুনটে দুই সন্তানের জননীকে মারপিট ও গোপনে তালাকের অভিযোগ

বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলার গোসাইবাড়ী ইউনিয়নের চিথুলিয়া গ্রামের মোঃআকবর আলীর মেয়ে দুই সন্তানের জননী রাজিয়া খাতুন(৩৬) কে মারপিট সহ গোপনে তালাক দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সম্পদ লোভী পাষণ্ড স্বামী মোঃরেজাউল করিম (৪০) এর বিরুদ্ধে।
সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, ধুনট উপজেলার চিথুলিয়া গ্রামের মোঃআকবর আলীর মেয়ের সাথে পাশের কচুগাড়ী বানিয়াজান গ্রামের ইসমাইল হোসেন এর ছেলে রেজাউল করিম এর সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় প্রায় ১৫ বছর পূর্বে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই রাজিয়াকে মারপিটসহ বিভিন্ন নির্যাতন করেই চলেছে সম্পদ লোভী পাষণ্ড স্বামী রেজাউল করিম। তাদের দাম্পত্য জীবনে দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে। রাজিয়া নিজ গ্রামে একটি এনজিওতে প্রায় ১০ বছর চাকরী করে টাকা জমিয়ে সেই টাকা দিয়ে রাজিয়া খাতুন তার নিজ নামে দুই শতাংশ জমি ক্রয় করে তার উপর তিন রুম বিশিষ্ট একটি বাড়ি নির্মাণ করে দুই কন্যা সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন এবং তার স্বামী নারায়ণগঞ্জে একটি কম্পানিতে কর্মরত আছেন। মাঝে মধ্যে বাড়িতে আসলেও কোন খরচপাতি না দিয়ে রাজিয়াকে মারপিট করেন ওই সম্পদলোভী রেজাউল করিম।

এই বিষয়ে রাজিয়া খাতুন বলেন,আমার শ্বশুর শাশুড়ি ননদী ও ননদীর স্বামী এবং দেবরসহ আরো অনেকের যোগসাজশে আমার কাছে থেকে জোরপূর্বক আমার নিজ নামে দলিলকৃত দুই শতাংশ জমি ও বাড়ি সহ আমার স্বামীর নামে লিখে দিতে বলে। আমি জমি ও বাড়ি তার নামে লিখে না দেওয়ায় আমাকে মারপিট সহ বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে আসছে।
এরই এক পর্যায়ে,আমার স্বামী আমাকে কোনো কিছু না বলে তার বাবা মা ছোট ভাই ও বোন এবং বোনের স্বামীর এর যোগসাজশে গোপনে আমাকে তালাক প্রদান করেন। তালাকের বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হওয়ার পর আমি জানতে পেরে বিভিন্ন জায়গায় বিচার চাইতে গেলে এলাকাবাসী বলে তারা প্রভাবশালী কেউ তাদের বিচার ও তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে রাজি নয়। পরে আমি আমার পরিবারের সাথে পরামর্শ করে বগুড়ায় বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা করি। এমতাবস্থায় আমাকে তালাক দেওয়ার কিছুদিন পর গত০৬/০৪/২১ তারিখে বিবাদী নারায়ণগঞ্জ থেকে বাড়িতে এসে তার বাবা মা ছোট ভাই ও বোন এবং বোনের স্বামী মিলে গত ৭/৪/২০২১ তারিখে সকালে অনুমান সাড়ে ৯ টায় আমার বাড়িতে অনধিকারে প্রবেশ করে আমাকে ও আমার মেয়েকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।  আদালত থেকে মামলা তুলে নিতে বিভিন্ন হুমকি ধামকী ও বাঁশের লাঠি, কাঠের বাঠাম দিয়ে এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছেলাফোলা জখম করে আমাকে ও মেয়েকে। আমার নিজ নামে দলিলকৃত জমি ও বাড়ি থেকে বের করে দেয়। আমার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসে এবং উদ্ধার করে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে এবং বিবাদীগন বর্তমানে আমার নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। এই বিষয়ে ধুনট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

এলাবাসি জানান,  রেজাউল করিম নারায়ণগঞ্জ একটি কোম্পানিতে চাকরী করেন। বাড়িতে এসে খরচ তো দেয়ই না,বরং রাজিয়াকে মারপিট করে। তারা প্রভাবশালী হওয়ায় আমরা কেউ কিছু বলতে পারি না। দু’এক জন সাহস করে তার প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের সাথে মারমুখী আচরণ করে।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন,রাজিয়ার নিজ নামে থাকা দুই শতাংশ জমি ও বাড়ি তার স্বামীর নামে লিখে না দেওয়ায় তাকে প্রতিদিন তার শ্বশুর শাশুড়ি ননদী এবং ননদী এর স্বামী ও দেবর সহ সবাই মিলে মারপিট করতো।
এরই ধারাবাহিকতায়,গোপনে রাজিয়াকে তালাক দেয়া হয়েছে। এলাকার স্বার্থে সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে আমরা এর বিচার চাই। এলাকার আর কোনো ব্যক্তি যেনো রাজিয়ার মত না হয়। কাউকে যেন সম্পত্তির লোভে মারপিট ও গোপনে তালাক দিতে না পারে এই জন্য সম্পদলোভী পাষণ্ড স্বামী রেজাউল করিম এর কঠিন থেকে কঠিনতম শাস্তির দাবি জানান তারা। সেই সাথে রাজিয়াকে তার নিজ নামে দলিলকৃত জমি ও বাড়িতে যাবার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ করেন তারা। রাজিয়া খাতুন তার কন্যা সন্তান নিয়ে তার বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন। রাজিয়া তার মেয়ে নিয়ে বিচারের দাবিতে দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।
ধুনট থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।
এই বিষয়ে এস আই মোঃ রাজ্জক এর মুঠোফোন যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়েছি।
কোর্টে মামলা চলামান রয়েছে, তালাকের পর মা এবং মেয়েকে নিজ বাড়ি থেকে মারপিট করে বের করে দেওয়ার ঘটনায় তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা হবে

কমেন্টস

Leave a comment

x