ফুটবলে দুই বাংলার মেলবন্ধনের আশা বসুন্ধরা গ্রুপ ইষ্টবেঙ্গলের গাটছারার জল্পনার মধ্যে    

ফুটবলে দুই বাংলার মেলবন্ধনের আশা বসুন্ধরা গ্রুপ ইষ্টবেঙ্গলের গাটছারার জল্পনার মধ্যে    

পার্থ নিয়োগী, পশ্চিমবঙ্গ (ভারত): ৪৭ এর স্বাধীনতার নামে বাংলা ভাগ ছিল এক চরম বিপর্যয়। তৎকালীন পূর্বপাকিস্থান অধুনা বাংলাদেশ থেকে আসা ছিন্নমূল উদবাস্তুরা পশ্চিমবাংলায় এসেও ভূলতে পারেনি তাদের জন্মভূমি পূর্ব বাংলাকে। আর সেই যন্ত্রনাকে ভুলতে তারা আপন করে নিয়েছিলেন কলকাতার শতাব্দী প্রাচীন ইস্টবেঙ্গল ক্লাব কে। বিশ্বজুরে বিভিন্ন প্রান্তে আছে ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা। এপার বাংলার দল হলেও ইস্টবেঙ্গলের নামের সাথে জরিয়ে আছে অখণ্ড বাংলার স্মৃতি। আর সেটাই আবার জোরাল হলো বাংলাদেশের বসুন্ধরা গ্রুপের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর সায়েম সোবহান আনভীর কে কলকাতায় ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের তরফে জমকাল সংবর্ধনা দেবার মধ্যে দিয়ে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় ইস্টবেঙ্গল ক্লাব তাবুতে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানটি হয়। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের প্রধান কর্মকর্তাদের পাশাপাশি প্রচুর ইষ্টবেঙ্গল সমর্থক ও প্রাক্তন ইস্টবেঙ্গল ফুটবলারাও এতে উপস্থিত ছিলেন। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের তরফে আনভীর কে সান্মানিক আজীবন সদস্যপদ দেওয়া হয়। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের তরফে সংবর্ধনা পেয়ে আপ্লুত হয়ে পড়েন বসুন্ধরা গ্রুপের কর্তা।

সায়েম সোবহানের তনভীরের সাথে এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তার স্ত্রী সাবরিনা সোবহান ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সহ সভাপতি মহম্বদ ইমরুল হাসান।

সায়েম সোবহান বলেন, আগামীদিনে ইষ্টবেঙ্গলকে সবরকম সহযোগিতা করতে তিনি প্রস্তুত। সায়েম সোবহান বলেন ‘আমরা চাই দুই বাংলার ক্রীড়াপ্রেমী মানুষ ভবিষ্যতে আরও কাছাকাছি আসুক সেটা তিনি চান’।

সোবহানের হাত দিয়ে বাংলাদেশের ফুটবলে যে অভূতপূর্ব কাজ হয়েছে তা নিয়ে দরাজ গলায় প্রশংসা করেন ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের এক কর্তা। উল্লেখ বর্তমানে ইষ্টবেঙ্গল ক্লাবের বিনিয়োগকারী সংস্থা শ্রীরাম সিমেন্ট এর সর্ম্পক একদম তলানীতে এসে ঠেকেছে। তারমধ্যে এবারের আই এস এলে ইষ্টবেঙ্গল অন্তিম স্থান অর্জন করেছে। যা শতবর্ষ প্রাচীন ক্লাবটির কাছে এক লজ্জা। তাই এবার নতুন বিনিয়োগকারী সংস্থার হাত ধরে ইষ্টবেঙ্গল ঘুরে দাড়াতে চায়। সূত্রের খবর ইষ্টবেঙ্গল ক্লাবের এক বড় অংশ চায় বাংলাদেশের বসুন্ধরা গ্রুপের সাথে জোট করতে। ইতিমধ্যেই সায়েম সোবহানের আমন্ত্রণে বেশ কয়েকজন ইষ্টবেঙ্গল কর্তা বাংলাদেশ গিয়েছেন কথাবার্তা বলতে। সূত্রের খবর বসুন্ধরা ইষ্টবেঙ্গল গাটছারা বাঁধা ইতিবাচক পথেই এগোচ্ছে।